ডায়াবেটিস ডায়েট: সুগারের রোগীদের যে সব ময়দার তৈরি জিনিস খাওয়া চলবে না

ময়দার মধ্যে উপস্থিত ব্লিচিং এজেন্ট ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

ডায়াবেটিস এমন একটি রোগ যেখানে খাদ্যাভ্যাসের যত্ন না নিলে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না রাখলে নানা ধরনের রোগ শরীরে সমস্যা শুরু করে। নীরব ঘাতক হিসেবে পরিচিত এই রোগের প্রভাব হার্ট, চোখ ও কিডনির ওপরও দেখা যায়। দুর্বল জীবনযাপন ও খাদ্যাভ্যাসের কারণে অল্প বয়সেই এই রোগ মানুষকে এর শিকার করে। শিশুরাও এখন এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য, ময়দা খাওয়া চিনির মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে। ময়দা দিয়ে তৈরি খাবার, যেমন সাদা রুটি, পাস্তা এবং অন্যান্য স্টার্চি আইটেমগুলিতে প্রচুর পরিমাণে কার্বোহাইড্রেট থাকে, যা রক্তে চিনির মাত্রা বাড়াতে পারে।

ময়দা সেবন কতটা ক্ষতিকর? ময়দা হল গমের আটার সবচেয়ে মিহি রূপ। ময়দা তৈরির পুরো প্রক্রিয়াটি এমন যে অনেক প্রয়োজনীয় পুষ্টি হারিয়ে যায়। ব্লিচ এবং রাসায়নিকের উপস্থিতির কারণে এর রঙ সাদা। ময়দার মধ্যে উপস্থিত ব্লিচিং এজেন্ট ডায়াবেটিস রোগীদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। যখন ময়দা তৈরি করা হয়, তখন প্রায় 97 শতাংশ ফাইবার গম থেকে হারিয়ে যায় এবং এইভাবে ময়দার আটার পুষ্টির মান হ্রাস পায়, যা সুগার রোগীদের জন্য ক্ষতিকারক।

সাদা খাবার খাওয়া সীমিত করুন: যাদের ডায়াবেটিস আছে তারা তাদের খাদ্যতালিকায় সাদা খাবার যেমন চিনি, সাদা ময়দা এবং ময়দা খাওয়া কমিয়ে দিন। ডায়াবেটিস রোগীদের সচেতনভাবে সাদা খাবার খাওয়া উচিত, তাদের রঙ সাদা, তাই তারা সচেতনভাবে খাওয়া উচিত নয়, কারণ এতে উচ্চ শর্করা এবং কম পুষ্টি রয়েছে।

ভাত থেকে দূরে থাকুন সাদা ভাত খাওয়া ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। ভাতের উচ্চ গ্লাইসেমিক ইনডেক্স ডায়াবেটিস রোগীদের সুগার লেভেল বাড়িয়ে দিতে পারে।

পাস্তা থেকেও দূরত্ব তৈরি করুন: পাস্তার অতিরিক্ত সেবন শুধু ডায়াবেটিস রোগীদেরই ক্ষতি করতে পারে না বরং একজন সুস্থ মানুষকেও ডায়াবেটিসের শিকার করতে পারে। পাস্তা তৈরিতে সস, ক্রিম এবং পনির ব্যবহার করা হয়, এই সব জিনিসই রক্তে চিনির মাত্রা বাড়াতে দায়ী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *